বায়ুর মান, স্বাস্থ্য ও পরিবেশের ওপর বাংলাদেশের পায়রায় প্রস্তাবিত বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলোর ক্ষতিকর প্রভাব

বায়ু দূষণে বিশ্বের সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত দেশগুলির মধ্যে বাংলাদেশ একটি।  স্বাস্থ্যের ওপর দূষণের প্রভাবে দেশটির গড় আয়ু প্রায় দুই বছর কমেছে।  বায়ুদূষণের উচ্চমাত্রা এখন বাংলাদেশের মানুষকে কোভিড–১৯ মহামারির বাড়তি ঝুঁকিতে ফেলেছে।  

Hilsa fishing in Bangladesh.

বাংলাদেশের কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলো বর্তমান পরিস্থিতিতে মরার ওপর খাড়ার ঘা হিসেবে দেখা দিয়েছে।  গোটা বিশ্বে নির্মাণাধীন কয়লা বিদ্যুৎ উৎপাদনের পরিকল্পনার মধ্যে বাংলাদেশের পরিকল্পনা ষষ্ঠ বৃহত্তম।  পায়রা বিদ্যুৎ হাব বাংলাদেশের সেই পরিকল্পনার একটি অংশ।  পায়রায় নির্মিতব্য বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলোর নির্গমণের যেসব মান নির্ধারণ করা হয়েছে তাও খুব ঢিলেঢালা।  এখানে বিপুল আকারের মোট আটটি কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ করা হবে।  এতে থাকবে ১৬টি বয়লার।  এই হাবের সক্ষমতা ৯ দশমিক ৮ গিগাওয়াট।  বাংলাদেশের পায়রায় নির্মাণাধীন এসব বিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলো হবে দক্ষিণ এশিয়ার দ্বিতীয় এবং বিশ্বের চতুর্থ বৃহত্তম বিদ্যুৎ হাব। আর দক্ষিণ এশিয়া সেই সঙ্গে বিশ্বের সবচেয়ে বায়ু দূষণকারী কেন্দ্রগুলোর একটি হবে।  পারদ নির্গমন এ কার্বন-ডাই-অক্সাইড নির্গমনের দিক থেকেও এগুলো সারা বিশ্বের অন্যতম কেন্দ্র হবে।

– পায়রায় প্রস্তাবিত সাতটি কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র দক্ষিণ এশিয়া তথা বিশ্বের অন্যতম বৃহৎ বায়ুদূষণকারী, পারদ এবং কার্বন নির্গমনের ক্ষেত্র হয়ে উঠবে।

– এসব বিদ্যুৎ কেন্দ্র থেকে প্রতি বছর আনুমানিক ৬০০ থেকে ৮০০ কেজি পারদ নির্গত হবে। এর এক-তৃতীয়াংশ বাংলাদেশের ভূমি এবং স্বাদু পানির পরিবেশে মিশবে।  এই পারদ মূলত ফসলি জমি এবং জলাশয়ে জমা হবে।  এতে খাদ্যে পারদ জমার পরিমাণ বাড়বে।  পাঁচ থেকে ১৫ লাখ মানুষের বসবাসের এলাকাকে বিপদগ্রস্ত করবে পারদ সঞ্চিত হওয়ার বিষয়টি।

– ৩০ বছরের মেয়াদকালে বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলোর ফলে সৃষ্ট বায়ুদূষণ ১৮ হাজার থেকে ৩৪ হাজার মানুষের মৃত্যুর কারণ হতে পারে।  এগুলো আরও কিছু নেতিবাচক স্বাস্থ্যগত প্রভাব ফেলতে পারে।  এলাকাবাসীকে ৭১ হাজার বার হাঁপানির জন্য জরুরি চিকিৎসা নিতে হতে পারে।  নতুন করে ১৫ হাজার শিশু হাঁপানিতে আক্রান্ত হতে পারে।  নির্দিষ্ট সময়ের আগে জন্ম হতে পারে ৩৯ হাজার শিশুর।  অসুখের কারণে দুই কোটি ৬০ লাখ দিন কাজে অনুপস্থিত (অসুস্থতাজনিত ছুটি) থাকার ঘটনা ঘটতে পারে।  শ্বাসতন্ত্রের দীর্ঘস্থায়ী রোগ, ডায়াবেটিস এবং স্ট্রোকের কারণে এলাকাবাসীকে মোট ৫৭ হাজার বছরের সমান সময় অক্ষম জীবন কাটাতে হতে পারে।    

Read the full report: English | বাংলা

Presentation at report launch press conference.